Skip to main content

কিভাবে Windows 10 S Mode রিমুভ করবেন

 উইন্ডোজ মূলত মাইক্রোসফট কোম্পানির রিলিজ করা একটা গ্রাফিকাল অপারেটিং সিস্টেম। আমরা যারা আমাদের দৈনন্দিন কাজে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করে থাকি, আমরা সকলেই Windows 10 S Mode অপারেটিং সিস্টেমের নাম জেনে থাকি।


আজকের আর্টিকেলে আমরা Windows 10 S Mode কী, Windows 10 S Mode বন্ধ করার উপায়, Windows 10 S Mode এর উপকারিতা ও অপকারিতা ইত্যাদি আলোচনা করবো। সুতরাং, যদি আপনি আপনার ব্যবহার করা কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থেকে Windows 10 S Mode রিমুভ করতে চান বা Windows 10 S Mode সম্পর্কে জানতে চান, তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য। আজকের আর্টিকেলে আমরা Windows 10 S Mode এর বিস্তারিত নিয়ে আলোচনা করবো।

Windows 10 S Mode কী?

সর্বপ্রথম আমাদের জানা উচিৎ, আসলেই Windows 10 S Mode কী? Windows 10 S Mode হলো এমন একটি কনফিগারেশন, যা আপনাকে দ্রুত Boot টাইম, দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি ও ভালো সিকিউরিটি প্রদান করে থাকে। কিন্তু, আপনি এই Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে মাইক্রোসফটে না থাকা সফটওয়্যার সহজেই ব্যবহার করতে পারবেন না। 

Windows 10 S Mode কেনো ব্যবহার করবো?

তারপর আমাদের মনে যেই প্রশ্ন আসে, তা হলো কেনো আমাদের Windows 10 S Mode ব্যবহার করা উচিৎ? নিম্মে আমরা বিভিন্ন পয়েন্ট উল্লেখ করার মাধ্যমে Windows 10 S Mode ব্যবহারের উপকারিতা উল্লেখ করছি।

  • Consistent performance: Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে আপনাকে আপনার ডিভাইসের পারফরমেন্স নিয়ে কখনোই চিন্তা করতে হবে না। Windows 10 S Mode ব্যবহারের কারণে আপনার কম্পিউটারে সর্বদা পারফরমেন্স ভালো থাকবে।
  • Faster boot times: Windows 10 S Mode ব্যবহার করা সিস্টেমগুলো অন্যান্য সিস্টেমের তুলনায় খুব দ্রুত Boot বা Start হয়। মাইক্রোসফট এর টেস্ট অনুযায়ী Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে মাত্র ১৫ সেকেন্ডে কম্পিউটার Boot হয় বা তা অন্যান্য সিস্টেমের তুলনায় ৮০% দ্রুত। 
  • Longer battery life: Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি আপনার ল্যাপটপের ব্যাটারি দীর্ঘদিন সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। কেননা, মাইক্রোসফট এর ভাষ্য অনুযায়ী Windows 10 S Mode ১৫% কম পাওয়ার খরচ করে এবং একবার চার্জের মাধ্যমে আপনি ১৪.৫ ঘন্টা ল্যাপটপ ব্যবহার করতে পারবেন।
  • Automatically save files to the cloud: Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার কম্পিউটারের সমস্ত ফাইল অটোমেটিক One Drive স্টোরেজে সেভ হয়ে যাবে, যা অবশ্যই একটি ভালো দিক।
  • Better security: Windows 10 S Mode ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি আপনার কম্পিউটারে একটি ভালোমানের সিকিউরিটি পাবেন।

Windows 10 S Mode কেনো রিমুভ করবো?

আপনার কম্পিউটার থেকে Windows 10 S Mode কেনো রিমুভ করা উচিত, তা জানার জন্য নিচে কিছু পয়েন্ট উল্লেখ করছি।

  • You can only use Edge and Bing: Windows 10 S Mode ব্যবহার করাবস্থায় আপনি কেবল সার্চ ইঞ্জিনের ক্ষেত্রে Edge এবং Bingo সাইট ব্যবহার করতে পারবেন, যা অবশ্যই একটি খারাপ দিক।
  • No third-party apps: Windows 10 S Mode ব্যবহার করাবস্থায় আপনি কেবল মাাইক্রোসফট থেকে সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে পারবেন। অন্যান্য কোন থার্ড পার্টি সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারবেন না।
  • Limited support for accessories: Windows 10 S Mode ব্যবহার করাবস্থায় আপনি প্রিন্টার, ওয়েবক্যাম সহ নানাবিধ সরঞ্জামাদির ক্ষেত্রে তেমন একটি সাপোর্ট পাবেন না। 
  • No OS customization and configuration tools: Windows 10 S Mode ব্যবহার করাবস্থায় আপনি Command Prompt, Windows Registry, Troubleshoting সহ অন্যান্য কনফিগারেশন ব্যবহার করতে পারবেন না।

কিভাবে Windows 10 S Mode চেক করবো?

যদি আপনি জানতে চান যে আপনার পিসিতে Windows 10 S Mode চালু আছে কি না, তাহলে নিম্মোক্ত নিয়মগুলো অনুসরণ করুন।

  • সর্বপ্রথম সার্ট মেনুতে ক্লিক করুন। তারপর সেখান হতে Setting অপশনে প্রবেশ করুন।
  • তারপর System অপশনে ক্লিক করুন।
  • এবং স্লাইডবার থেকে About অপশনে ক্লিক করুন।
  • সেখানে আপনি Windows specifications সেকশনে Edition দেখতে পাবেন। যদি আপনার কম্পিউটারে Windows 10 S Mode চালু থাকে, তাহলে আপনি তা সেখানে দেখতে পাবেন।

কিভাবে Windows 10 S Mode বন্ধ করবো?

যদি আপনার ডিভাইসে Windows 10 S Mode চালুু থাকে এবং আপনি তা বন্ধ করতে চান, তাহলে নিম্মের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করুন।

  • Windows 10 S Mode বন্ধ করার জন্য প্রথমে আপনি স্টার্ট মেনুতে ক্লিক করুন।
  • তারপর সেখান হতে সেটিংস অপশনে ক্লিক করুন।
  • তারপর Update & Security অপশন চুজ করুন।
  • তারপর আপনি স্লাইডবার হতে Activation অপশনটি পাবেন, তাতে ক্লিক করুন।
  • তারপর Go to the store অপশনে ক্লিক করুন। স্টোরে প্রবেশ করার পর আপনি একটি প্যাকেজ দেখতে পাবেন উইন্ডোজ লগো সহ। তাতে ক্লিক করুন।
  • তারপর উক্ত প্যাকেজে Description এর নিচে Get নামে একটি বাটন পাবেন, তাতে ক্লিক করুন।
  • তারপর Install অপশনে ক্লিক করুন এবং সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। .

এইভাবে আপনি খুব সহজেই আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপ হতে Windows 10 S Mode রিমুভ করতে পারবেন। Windows 10 S Mode নিয়ে আমাদের আজকের আর্টিকেল আপনার কেমন লেগেছে, তা কমেন্ট করে জানাতে পারেন। 




Comments

Popular posts from this blog

কিভাবে এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোনে নটিফিকেশন লুকাবেন

  বর্তমান সময়ে এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন আমাদের সকলের জন্য একটি প্রয়োজনীয় বস্তু হয়ে দাড়িয়েছে। আমাদের সার্বিকক যোগাযোগের জন্য সর্বপ্রথম আমরা এই এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোনকে বেছে নিই। আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের সকল কাজের জন্য এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোনকে প্রাথমিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছি।  Google প্রায়ই কিছুদিন পর পর এন্ড্রোয়েড অপারেটিং সিস্টেমে নতুন কিছু আপডেট নিয়ে আসে। Google এবার Android Oreo ভার্সনে ইউজারদের জন্য নতুন একটি আপডেট এনেছে আর তা হলো, Android Background Notification নামে একটি ফিচার। এই Android Background Notification ফিচারটির মাধ্যমে আপনি আপনার Android Oreo ভার্সনে আপনার ব্যাকগ্রাউন্ডে রানিং থাকা সমস্ত এপস সম্পর্কে নোটিফিকেশন পাবেন এবং কোন কোন এপস আপনার ব্যাটারির ক্ষতি করছে, তা সম্পর্কে জানতে পারবেন। কিন্তু, এই Android Background Notification ফিচারটি ইউজারদের জন্য উপকারী হলেও, অনেক ইউজার এই Android Background Notification ফিচারটি ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে না। কেননা, একটু পর পর নোটিফিকেশন আসতে থাকা সকলের জন্যই বিরক্তির কারণ হয়ে দাড়ায়।  সুতরাং, যদি আপনি Android Oreo ভার্সনের এন

কিভাবে এন্ড্রোয়েড ফোনে একাধিক একাউন্ট করবেন

  আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনে একটি এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন কতটুকু জরুরী, তা ভাষায় বুজিয়ে বলার আক্ষেপ রাখে না। একটি এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন আমাদের জীবনের সকল কাজ খুব সহজেই সমাধান করে দেয়। আমরা সকলেই আজকাল নিজেদের সার্বিক প্রয়োজনে এই এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন ব্যবহার করে থাকি।  বর্তমানে এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোনের একটি বিশেষ ফিচার হলো, Android Multiple User Account Feature। আমরা আমাদের নিজস্ব ব্যবহার করা এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন বিভিন্ন প্রয়োজনে অন্যদের সঙ্গে শেয়ার করে থাকি। এক্ষেত্রে অবশ্যই আমরা আমাদের স্মার্টফোনের ব্যপারে তেমন একটি সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে পারি না।  তাই, Google ইউজারদের সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে এবার নিয়ে এলো Android Multiple User Account Feature নামে একটি ফিচার। এই Android Multiple User Account Feature ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার স্মার্টফোনে ইউজার একাউন্ট পরিবর্তন করে আপনার স্মার্টফোনটি অন্যদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন। এতে অন্যান্য কেউ আপনার পার্সোনাল ইনফরমেশনে সহজেই এক্সেস নিতে পারবে না এবং আপনাকে আপনার সিকিউরিটি নিয়ে চিন্তিত হতে হবে না। কিভাবে Android Multiple User Account Feature

উইন্ডোজ ১০ অটোমেটিক আপডেট বন্ধ করার উপায়

  উইন্ডোজ ১০ বর্তমান সময়ে বহুল ব্যবহৃত একটি গ্রাফিক্যাল অপারেটিং সিস্টেম। এই উইন্ডোজ ১০  অপারেটিং সিস্টেমটি মাইক্রোসফট কোম্পানির অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের তুলনায় বহুল ব্যবহৃত হয়েছে এবং বহুল প্রসিদ্ধও বটে। আমরা যারা নতুন কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ক্রয় করি, আমরা সকলেই মূলত এই উইন্ডোজ ১০ এর বিভিন্ন ভার্সন ব্যবহারের মাধ্যমে কম্পিউটার ব্যবহার শুরু করে থাকি। উইন্ডোজ ১০ এর অন্যান্য জনপ্রিয় ফিচারগুলো থেকে একটি ফিচার হচ্ছে, উইন্ডোজ ১০ অটোমেটিক আপডেট হওয়া। এই ফিচারটির মাধ্যমে মাইক্রোসফট থেকে রিলিজ করা সমস্ত আপডেট ইন্টারনেট কানেকশনের মাধ্যমে প্রতিটি কম্পিউটারে অটোমেটিক আপডেট হয়ে থাকে।  যদিও এই ফিচারটি বহুল জনপ্রিয়, কিন্তু অনেকের নিকট এই ফিচারটি একটি বিরক্তিকর কারন হয়ে উঠে। কিন্তু, উইন্ডোজ ১০ ভার্সনে উইন্ডোজ অটোমেটিক আপডেট হওয়ার বিষয়টি আপনার নিয়ন্ত্রণে নয়। কেননা, কোন সাধারণ মানুষ এই অটোমেটিক আপডেট ফিচারটি বন্ধ করতে পারেনা। সুতরাং, আপনি যদি আপনার ব্যবহার করা কম্পিউটারে উইন্ডোজ ১০ অটোমেটিক আপডেট বন্ধ করার উপায় জানতে চান, তাহলে আজকের আর্টিকেল আপনার জন্য। আজকের আর্টিকেলে আমরা আপনাকে উইন্ডোজ ১০ অটোমেটিক আ